\ ১৫ হাজার ৩৩৯ কোটি টাকার সম্পূরক বাজেট পাস | Bangla Photo News
Tuesday , August 21 2018
Homeজাতীয়১৫ হাজার ৩৩৯ কোটি টাকার সম্পূরক বাজেট পাস
১৫ হাজার ৩৩৯ কোটি টাকার সম্পূরক বাজেট পাস

১৫ হাজার ৩৩৯ কোটি টাকার সম্পূরক বাজেট পাস

বাংলা ফটো নিউজ : বরাদ্দের অতিরিক্ত খরচ করে সংসদে অনুমোদন নিতে সম্পূরক বাজেট পাস করা হয়েছে। বিদায়ী ২০১৭-১৮ অর্থবছরের সম্পূরক বাজেট কণ্ঠভোটে পাস হয়েছে। এ বাজেট পাসের মধ্য দিয়ে সংসদ ২২টি মন্ত্রণালয় ও বিভাগকে অতিরিক্ত ১৫ হাজার ৩৩৯ কোটি ৮২ লাখ ৫০ হাজার টাকা ব্যয় করার অনুমতি দেওয়া হয়েছে।

এই অর্থ অনুমোদনের জন্য ২৪টি মঞ্জুরি দাবি উত্থাপন করা হয়। এসব দাবির মধ্যে চারটি দাবির ওপর আনা ছাঁটাই প্রস্তাবের ওপর আলোচনা হয়। এগুলো হচ্ছে-জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়, স্থানীয় সরকার বিভাগ, বিদ্যুৎ বিভাগ ও স্বাস্থ্য শিক্ষা ও পরিবার কল্যাণ বিভাগ। বাকি মঞ্জুরি দাবিগুলো সরাসরি ভোটে প্রদান করা হয়। অবশ্য সব ছাঁটাই প্রস্তাবগুলোই কণ্ঠভোটে নাকচ হয়ে যায়।

এরপর অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিতের প্রস্তাবের পরিপ্রেক্ষিতে নির্দিষ্টকরণ (সম্পূরক) বিল ২০১৮ উত্থাপন করলে তা কণ্ঠভোটে পাস হয়। গত অর্থবছর শেষে ২২টি মন্ত্রণালয় ও বিভাগ বাজেটের চেয়ে বেশি অর্থ বরাদ্দ চেয়েছে। সাংবিধানিক নিয়ম অনুসারে যেসব মন্ত্রণালয় বা বিভাগ বাজেটের বরাদ্দ করা অর্থ ব্যয় করতে পারেনি তাদের হ্রাস করা বরাদ্দের জন্য সংসদের অনুমতির প্রয়োজন হয় না। কিন্তু যেসব মন্ত্রণালয় বা বিভাগ অতিরিক্ত ব্যয় করেছে কেবল তাদের বরাদ্দই সংসদের অনুমতির প্রয়োজন হয়।

এরই পরিপ্রেক্ষিতে সোমবার (১১ জুন) সংসদে এই সম্পূরক বাজেট পাস হয়। সম্পূরক বাজেটের ওপর মোট ২৪টি দাবির বিপরীতে মোট ১৭৩টি ছাঁটাই প্রস্তাব আনা হয়। ব্যয় বরাদ্দের বিরোধীতা করে ছাঁটাই প্রস্তাব এনে আলোচনায় অংশ নেন জাতীয় পার্টির কাজী ফিরোজ রশীদ, সেলিম উদ্দিন, বেগম রওশন আরা মান্নান, স্বতন্ত্র এমপি রুস্তম আলী ফরাজী, জাতীয় পার্টির ফখরুল ইমাম ও নুরুল ইসলাম ওমর।

সম্পূরক বাজেটের আওতায় ২২টি মন্ত্রণালয় ও বিভাগের বিপরীতে ১৫ হাজার ৩৩৯ কোটি ৮২ লাখ ৫০ হাজার টাকার বরাদ্দ অনুমোদন করা হয়। এর মধ্যে সর্বাধিক ৩ হাজার ৯২৬ কোটি ১১ লাখ ৬৪ হাজার টাকা বিদ্যুৎ জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ মন্ত্রণালয়ের অধীনে থাকা বিদ্যুৎ বিভাগ খাতে বরাদ্দ অনুমোদন করা হয়েছে। এরপরেই রয়েছে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় খাত। এ খাতে অতিরিক্ত বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে তিন হাজার ৩শ’ ৪৭ কোটি ৪১ লাখ ৬২ হাজার টাকা। সবচেয়ে কম ৪ কোটি এক লাখ ৮৭ হাজার টাকা বরাদ্দ অনুমোদন পেয়েছে আইন বিচার ও সংসদ বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের অধীনে থাকা লেজিসলেটিভ ও সংসদ বিষয়ক বিভাগ।

এছাড়া বেশি বরাদ্দ পাওয়া অন্য মন্ত্রণালয় ও বিভাগের মধ্যে রয়েছে-স্থানীয় সরকার, পল্লি উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রণালয়ের স্থানীয় সরকার বিভাগ খাতে এক হাজার ৮শ’ ৬৮ কোটি ৬০ লাখ ৯৫ হাজার টাকা, সড়ক পরিবহন মহাসড়ক বিভাগে এক হাজার ১শ’ ৮২ কোটি ৬৪ লাক ৫০ হাজার টাকা,স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের অধীনে জননিরাপত্তা বিভাগে এক হাজার ১শ’ নয় কোটি ১১ লাখ এক হাজার টাকা, প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়ে ৬শ’ ৫৯ কোটি ৯৩ লাখ ৩০ হাজার টাকা, জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ে ৪শ’ ৭১ কোটি ৯৬ লাখ ২১ হাজার টাকা, ধর্ম বিষয়ক মন্ত্রণালয়ে ৩শ’ ১৫ কোটি ৭৮ লাখ ৭২ হাজার টাকা, স্থানীয় সরকার, পল্লি উন্নয়ন ও সমবায় বিভাগ খাতে ৩শ’ ১১ কোটি ৫১ লাখ ৪৯ হাজার টাকা, পানিসম্পদ মন্ত্রণালয় খাতে ১শ’ ৯৫ কোটি ৪৬ লাখ ৭০ হাজার টাকা, নৌ-পরিবহন মন্ত্রণালয় খাতে ১শ’ ৭৩ কোটি ৭৭ লাখ ৩৬ হাজার টাকা এবং স্বাস্থ্য শিক্ষা ও পরিবার কল্যাণ বিভাগ খাতে ১শ’ ৬২ কোটি ৬১ লাখ ৮৬ হাজার টাকা।

এদিকে সম্পূরক বাজেট পাসের আগে এ নিয়ে আলোচনা করেন সরকারি ও বিরোধী দল ও স্বতন্ত্র এমপিরা। এর মধ্যে অতিরিক্ত অর্থ বরাদ্দের কড়া সমালোচনা করেন বিরোধী দল ও স্বতন্ত্র এমপিরা। তারা বলেন, যখন বাজেট করা হয় তখন হিসাব করে করা হয়েছিলো। কারা সেসময় বাজেট তৈরি করেছিলেন?

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*