\ সোহাগের শাস্তি, নইলে কঠোর কর্মসূচি | Bangla Photo News
Wednesday , December 19 2018
Homeখেলাধুলাসোহাগের শাস্তি, নইলে কঠোর কর্মসূচি
সোহাগের শাস্তি, নইলে কঠোর কর্মসূচি

সোহাগের শাস্তি, নইলে কঠোর কর্মসূচি

বাংলা ফটো নিউজ : এখনো বাফুফের আলিঙ্গনে আবু নাঈম সোহাগ। সহসভাপতি বাদল রায়কে হুমকি এবং তাঁর ঔদ্ধত্যপূর্ণ আচরণের পরও এই বাফুফে সম্পাদকের বিরুদ্ধে কোনো ব্যবস্থা নেয়নি ফেডারেশন। তাই সাবেক ফুটবলাররা আবারও এক মঞ্চে হাজির হয়েছেন সোহাগের শাস্তির দাবিতে। শাস্তি না হলে আরো কঠোর কর্মসূচি দেওয়ার হুমকি দিয়েছেন তাঁরা।

জাতীয় প্রেস ক্লাবে অনুষ্ঠিত সংবাদ সম্মেলনে হাজির হয়েছেন সাবেক তারকা ফুটবলাররা। ‘এটা বাদল রায়ের একার অপমান নয়, আমাদের সবার। তাই এত ফুটবলার আজ এক টেবিলে’—বলেছেন ইমতিয়াজ সুলতান জনি। গোলাম সারোয়ার টিপু এই ইস্যুতে ফেডারেশনের সাবেক খেলোয়াড়দের পাশে আশা করেছিলেন, ‘বাদলের সঙ্গে এই ঘটনা সব ফুটবলারের জন্য একটা বড় ধাক্কা। আমরা খেলোয়াড়রা মানসিকভাবে আহত। ফুটবলের কমিটিতে যেসব খেলোয়াড় আছে তারা যদি একটু সহানুভূতি দেখাত, সম্মান দেখাত, তা-ও একরকম সান্ত্বনা পাওয়া যেত। উল্টো ফেডারেশনের কর্তারা ওই বিতর্কিত কর্মচারীকে নিয়ে নাচছে।’ কর্মচারীর নাম আবু নাঈম সোহাগ। বাদল রায় এবং তাঁর পরিবারকে হুমকি দেওয়ার অভিযোগে তাঁর বিরুদ্ধে গত ২৬ মে ওয়ারী থানায় সাধারণ ডায়েরি করা হয়েছিল। এই খবর জানাজানি হওয়ার পর সাবেক ফুটবল তারকারা একবার সোচ্চার হয়েছিলেন। মানববন্ধন করেছিলেন বাফুফের সামনে। বাফুফে ঘটনা তদন্তে কমিটি করলেও রিপোর্ট অজানা। তাই গতাকাল স্বাধীন বাংলা ফুটবল দলের অধিনায়ক জাকারিয়া পিন্টু, প্রতাপ শংকর হাজরা, গোলাম সারোয়ার টিপু, আশরাফ উদ্দিন চুন্নু, হাসানুজ্জামান খান বাবলু, শেখ মোহাম্মদ আসলাম, কায়সার হামিদ, ওয়াহিদুজ্জামান পিন্টু, ইমতিয়াজ সুলতান জনিসহ অনেক সবেক ফুটবলার আসেন প্রেস ক্লাবে।

সংবাদ সম্মেলনে সোহাগের শাস্তির দাবির পাশাপাশি দেশের ফুটবলের দৈন্য নিয়েও কথা বলেছেন সাবেকরা। একসময়ের তুখোড় ডিফেন্ডার কায়সার হামিদ সোহাগ-সালাউদ্দিনের পদত্যাগ দাবি করেছেন, ‘নির্বাচনে সালাউদ্দিন ভাইকে সমর্থন করেছিলাম, ভেবেছিলাম ফুটবলের মোড় ঘুরবে। কিন্তু ফুটবল পৌঁছেছে তলানিতে। আর সেই ফেডারেশনের কর্মচারী সাবেক খেলোয়াড়দের হুমকিধমকি দিচ্ছে। সোহাগের পেছনে বড় কেউ আছে নিশ্চিত। ফুটবলের যে অবস্থা, সোহাগ-সালাউদ্দিনসহ সবার পদত্যাগ করা উচিত।’ সাবেক তারকা উইঙ্গার আশরাফ উদ্দিন চুন্নু বাফুফে সভাপতিকে কাঠগড়ায় তুলেছেন দেশের ফুটবলকে ১৯৪তম স্থানে অবনমনের জন্য, ‘জাতির সঙ্গে প্রতারণা করেছেন সালাউদ্দিন। তাঁর ক্ষমা চাওয়া উচিত জাতির কাছে।’ পরে যোগ করেন, ‘এক দফা এক দাবি, সোহাগ তুই কবে যাবি।’ সাধারণ সম্পাদক হিসেবে গত জুনে মেয়াদ শেষ হওয়ার পরও সোহাগ আছেন ফেডারেশনে। এটা অবৈধ হলেও জাকারিয়া পিন্টুর মনে করেন, ‘ফেডারেশনের কর্তারা সোহাগকে কোলে বসিয়ে রেখেছে।’

তবে সাবেক গোলরক্ষক ওয়াহিদুজ্জামান পিন্টু নিয়তির কথা মনে করিয়ে দিয়েছেন বাফুফে কর্তাদের, ‘বাদল রায়ের সঙ্গে ওই কর্মচারী যেটা করেছে একদিন সেটা আপনাদের দিকেও ফিরে যেতে পারে। আমরা একসময় ফুটবল খেলেছি, তার বিনিময়ে সাবেক ফুটবলাররা শুধু সম্মান চাইছি।’ এরপর বিখ্যাত বাংলা ছবি ‘হীরক রাজার দেশে’র অত্যাচারী রাজার বিরুদ্ধে গাওয়া গানটি মনে করিয়ে দিয়েছেন, ‘দড়ি ধরে মারো টান, রাজা হবে খান খান।’ তাহলে সেই দড়ি কি সোহাগ! তাঁকে টান দিলেই ফুটবলের ‘রাজার’ ভিত নড়ে যাবে!

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*