\ চলে গেলেন সুপার হিরোদের বাবা | Bangla Photo News
Saturday , December 15 2018
Homeবিনোদনচলে গেলেন সুপার হিরোদের বাবা
চলে গেলেন সুপার হিরোদের বাবা

চলে গেলেন সুপার হিরোদের বাবা

বাংলা ফটো নিউজ : ভদ্রলোকের ব্যাকব্রাশ করা সাদা চুল। গোফটুকুও সাদা। ‘স্পাইডার ম্যান’ ছবির উদ্বোধনী প্রদর্শনী ছিল বুঝি সেদিন। সংবাদমাধ্যমের আলোকচিত্রীরা বললেন, ‘স্যার, দাঁড়ান, ছবি তুলি।’ ভদ্রলোক কেবল হাসিমুখে দাঁড়ালেনই না, প্রত্যেক আলোকচিত্রীর দিকে তাকাচ্ছিলেন আর স্পাইডার ম্যানের মতো হাত তাক করছিলেন, যেন জাল ছুড়ে দিচ্ছিলেন। স্পাইডার ম্যান, আয়রন ম্যান, দ্য হাল্কের মতো জনপ্রিয় কমিক চরিত্রগুলোর বাবা বা স্রষ্টা তিনি, স্ট্যান লি। সোমবার তিনি মারা গেছেন। মৃত্যুকালে তাঁর বয়স হয়েছিল ৯৫ বছর।

সোমবার সকালে স্ট্যান লিকে তাঁর হলিউড হিলসের বাড়ি থেকে অ্যাম্বুলেন্সে নেওয়া হয় লস অ্যাঞ্জেলেসের সেডাক সাইনাই মেডিকেল সেন্টারে। সেখানকার চিকিৎসকেরা তাঁকে মৃত ঘোষণা করেন। তাঁর পারিবারিক আইনজীবী জানিয়েছেন, বার্ধক্যের কারণেই তিনি মারা গেছেন।

১৯২২ সালে রোমানিয়া থেকে আসা এক শ্রমিক পরিবারে স্ট্যান লির জন্ম। কর্মজীবনের শুরুতে মার্টিন গুডম্যানের টাইমলি পাবলিকেশনসের কমিক বিভাগে কাজ শুরু করেন তিনি। এ প্রতিষ্ঠানটিই পরে হয়ে যায় মারভেল কমিকস। মাত্র ১৮ বছর বয়সে তিনি হন সেই প্রতিষ্ঠানের সম্পাদক।

দীর্ঘদিন তরুণদের জন্য তিনি অপরাধ, রোমহর্ষক ও ওয়েস্টার্ন কমিক লিখেছেন। ৪০ বছর বয়সে যখন সিদ্ধান্ত নেন, এসব ছেড়ে দেবেন। তাঁর স্ত্রী জোয়ান বলেছিলেন, ‘ছেড়ো না। পারলে নতুন কিছু চরিত্র তৈরি করো।’ ১৯৬১ সালে লি ও শিল্পী জ্যাক কিরবি মিলে তৈরি করেন ‘ফ্যান্টাস্টিক ফোর’। ১৯৭২ সালে স্ট্যান লি মারভেল কোম্পানি ছেড়ে দেন। তবে মারভেলের বেশির ভাগ ছবিতে অতিথি চরিত্রে দেখা যেত তাঁকে। এমনকি প্রতিষ্ঠানটির চেয়ারম্যান ইমেরিটাস হিসেবে ছিলেন তিনি। ২০১৭ সালে স্ট্যানের স্ত্রী ৯৫ বছর বয়সে মারা যান।

প্রয়াত বাবাকে নিয়ে স্ট্যান লির মেয়ে জে সি লি সংবাদমাধ্যমকে বলেছেন, ‘মহৎ আর পরিশীলিত এক মানুষ ছিলেন তিনি। বেঁচে থাকাটা বাবার জন্য ছিল দারুণ আনন্দের। জীবনে যা কিছু করেছেন, সবই ভালোবেসে করেছেন। সে জন্য বিশ্বের সবার ভালোবাসাও পেয়েছেন। ভক্তদের কাছে তাঁর সৃজনশীলতার দায়বদ্ধতা ছিল।’

লেখক স্ট্যান লির সৃষ্ট চরিত্রগুলোতে অভিনয় করে খ্যাতি অর্জন করেছেন যাঁরা, সেই সুপার হিরোরা আজ শোকাহত। সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে কৃতজ্ঞতা, শ্রদ্ধা ও শোক জানিয়েছেন তাঁরা।

‘ক্যাপ্টেন আমেরিকা’ চরিত্রের অভিনেতা ক্রিস ইভানস লিখেছেন, ‘আরেক জন স্ট্যান লি আসবেন না।’ ‘এক্স-ম্যান’ তারকা হিউ জ্যাকম্যান লিখেছেন, ‘আমরা সৃজনশীল এক মেধাবীকে হারালাম।’ ‘আয়রন ম্যান’, অর্থাৎ রবার্ট ডউনি জুনিয়র লিখেছেন, ‘আমি আপনার কাছে ঋণী থাকব। শান্তিতে ঘুমান স্ট্যান।’ ‘ভেনম’ চরিত্রের অভিনেতা টম হার্ডি শ্রদ্ধা জানিয়েছেন স্ট্যানের সঙ্গে নিজের একটি সাদাকালো ছবি প্রকাশ করে। ‘ডেডপুল’ চরিত্রের অভিনেতা রায়ান রেনল্ডস লিখেছেন, ‘শান্তিতে ঘুমান স্ট্যান। সবকিছুর জন্য ধন্যবাদ।’ মারভেলের নতুন ‘স্পাইডার ম্যান’ টম হল্যান্ড লিখেছেন, ‘ঋণী থাকলাম।’ ‘অ্যাভেঞ্জার্স’ সিরিজের ‘ব্ল্যাক উইডো’ চরিত্রের অভিনেত্রী স্কারলেট জোহানসন লিখেছেন, ‘শান্তিতে ঘুমান স্ট্যান লি: লেখক, সম্পাদক, মারভেল কমিকের প্রকাশকসহ আরও অনেক কিছু। যা করেছেন সবকিছুর জন্য ধন্যবাদ।’

সুপারহিরোদের অন্য রকম এক রূপে মানুষের সামনে এনেছিলেন স্ট্যান লি। নিজের সৃষ্ট চরিত্রগুলো প্রসঙ্গে ২০১০ সালে তিনি বলেছিলেন, ‘আমার মনে হয়, এদের ব্যক্তিত্ব মানুষ পছন্দ করে। এরা কখনো সুপারহিরো আবার কখনো সাধারণ মানুষ।’

মারভেল স্টুডিওর প্রযোজক ও সভাপতি কেভিন ফাইগি লিখেছেন, ‘আমার ক্যারিয়ারে যার প্রভাব সব থেকে বেশি ছিল এবং মারভেল থেকে আমরা যা করতাম, সবই স্ট্যান লির দেওয়া।’ বিবিসি

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*